ইয়ানূর রহমান :


যশোরে নতুন করে ২৭ জনের কোভিড-১৯ নভেল করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এই নিয়ে বুধবার পর্যন্ত জেলায় করোনা শনাক্তের সংখ্যা ১৪শ’ ১৯ জনে দাঁড়ালো। আক্রান্তদের মধ্যে যশোর পৌরসভা ও সদর উপজেলার রোগী রয়েছেন ৭০৩ জন।

যশোর সিভিল সার্জন অফিসের দায়িত্বপ্রাপ্ত তথ্য কর্মকর্তা ডা. রেহেনেওয়াজ জানিয়েছেন, মঙ্গলবার যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) জেনোম সেন্টার থেকে পাঠানো ১১৭ জনের নমুনা পরীক্ষার ফলাফলে ৩২ জনের করোনা পজেটিভ শনাক্ত হয়। এরমধ্যে খুলনার ৫ জন পুলিশ সদস্য রয়েছেন। তারা আমাদের মাধ্যমে নমুনা পরীক্ষার জন্য যবিপ্রবিতে নমুনা পাঠিয়ে ছিলো। তাদের ফলাফল খুলনায় পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। এছাড়া খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের (খুমেক ) ল্যাব থেকে ১ জনের করোনা শনাক্তের ফলাফল আসে। সেই হিসেবে যশোরে নতুন ২৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

এরমধ্যে যশোর সদর উপজেলায় ৬ জন, শার্শা উপজেলায় ১০ জন, ঝিকরগাছা উপজেলায় ৯ জন, মণিরামপুর উপজেলায়  ৬ জন, কেশবপুর উপজেলায় ৪ জন ও অভয়নগর উপজেলায় ১ জন। ডা. রেহেনেওয়াজ জানান,  মঙ্গলবার নতুন করে ৩৫ জনকে করোনামুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। আর করোনায় আক্রান্ত সন্দেহে আরও ২৩৬ জনের নমুনা পরীক্ষার জন্য যবিপ্রবির জেনোম সেন্টারে পাঠানো হয়েছে।

যশোর সদর উপজেলা স্বাস্থ্য উপজেলার মেডিকেল ডা. আদনান ইমতিয়াজ জানান, নতুন করে আক্রান্ত ৬ জনের মধ্যে পুলিশ সদস্য মিজানুর রহমানকে (৫৫)  ঝিনাইদহ জেলায় রেফার্ড করা হয়েছে। বাকি ৫ জন হলেন যশোর সরকারি টিচার্স  ট্রেনিং সেন্টারের অধ্যক্ষ কাজী বরকত উল্লাহ (৪৩),  আশ্রম রোডে বসবাসকারী

যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের চিকিৎসক পূর্বে আক্রান্ত গৌতম কুমার ঘোষের স্ত্রী দিপ্তী (৩৪), পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের ডিডি পূর্বে আক্রান্ত রেজাউল করিমের স্ত্রী শাম্মি (২৯), পালবাড়ি এলাকার বাসিন্দা ব্যাংকার তানভির রহমান (৩৪) ও পুরাতন কসবার বাসিন্দা আশরাফুল আলম (৫০)।

যবিপ্রবির এনএফটি বিভাগের চেয়ারম্যান ও পরীক্ষণ দলের সদস্য ড. শিরিন নিগার জানিয়েছেন, জেনোম সেন্টারে যশোর জেলার ৩২ জন ছাড়াও  মাগুরা জেলার ২৬ নমুনা পরীক্ষায় ৯ জন, সাতক্ষীরা জেলার ৯০ নমুনা পরীক্ষায় ৩০ জন ও বাগেরহাট জেলার ৪৬ নমুনা পরীক্ষায় ১০ জনের শরীরে করোনার জীবাণু পাওয়া গেছে। সব মিলিয়ে ২৭৯ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৮১ জনের করোনা পজিটিভ এবং ১৯৮ জনের নেগেটিভ ফলাফল এসেছে। যশোরের সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন মুঠোফোনে জানিয়েছেন, এই পর্যন্ত
যশোর জেলার ৭ হাজার ৮শ’ ৩৭ জনের নমুনা পরীক্ষার জন্য ল্যাবে পাঠানো হয়েছে। ফলাফল এসেছে ৬ হাজার ৫শ’ ২৫ জনের। এরমধ্যে করোনা পটিজিভ শনাক্ত হয়েছে ১৪শ’ ১৯ জন। সিভিল সার্জন আরো জানান, সোমবার পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ৭শ’ ১ জন। ২১ জন নারী পুরুষের মৃত্যু হয়েছে।

Sharing is caring!